আকিকার গোস্ত বন্টনের নিয়ম

আকিকার গোস্ত বন্টনের নিয়ম- আকিকা দেওয়ার নিয়ম

আকিকার গোস্ত বন্টনের নিয়ম। ইসলাম ধর্মের মানুষদের আকিকা দেওয়া একটি উত্তম কাজ। মুসলিমদের ঘরে নতুন শিশু জন্মগ্রহণ করলে তাদের আকিকা দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। পূর্ব থেকেই এই নিয়ম চলে আসছে। ইসলাম ধর্ম গ্রন্থে স্পষ্ট এই বিষয়ে উল্লেখ রয়েছে। মুসলিম ধর্মের সকল মানুষের জানেন নতুন শিশু জন্মগ্রহণ করলে তাদের যে আকিকা দিতে হয় সে বিষয়ে। কিন্তু আকিকা দেওয়ার নিয়ম নিয়ে অনেকের মতপার্থক্য রয়েছে। অনেকেই জানেন না কিভাবে আকিকার মাংস ভাগ করতে হয়। কিন্তু আমাদের ইসলাম ধর্মের ধর্মগ্রন্থ গুলিতে সকল কিছু স্পষ্টভাবে বলা আছে। কিন্তু আমরা কেউই সেই বিষয়গুলো ভালভাবে পড়ি না বিধায় সে বিষয়ে জানিনা। তাই আমাদের উচিত ধর্মগ্রন্থগুলো মনোযোগ সহকারে পড়া। এতে আমরা জীবন পরিচালনা করার সকল নিয়ম জানতে পারবো।

আকিকার গোস্ত বন্টনের নিয়ম

ইতিমধ্যে আমরা জেনেছি আকিকা কখন দিতে হয়। নতুন শিশু জন্ম গ্রহণের পর এই আকিকা দিতে হয়। কিন্তু আকিকা কখন দেবেন? এ নিয়ে অনেকের মনে রয়েছে প্রশ্ন। অনেকে বলেন আকিকা দিতে হয় সপ্তম দিনে, তাছাড়া বলেন 14 দিনে অথবা 21 দিনে দিতে হয়। কিন্তু কোনটি সঠিক ? এ বিষয়ে আমাদের অবশ্যই জানতে হবে। চলুন জেনে নেই আকিকা দেওয়া উত্তম সময়।

আকিকার সময়

(সহীহ ইবনে হিব্বানী – ইবনে হাজার আসকালানী সহি বলে উল্লেখ করেছেন) আয়েশা রা.  বর্ণনা তিনি বলেন যে,  মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ তিনি তার (দৌহিত্র) অর্থাৎ তার নাতনি হাসান এবং হোসেন এর আকিকা তিনি নিজেই করেছেন। তিনি তাদের আকিকা করেছিলেন সপ্তম দিনে। এবং সপ্তম দিনে তাদের নাম রেখেছেন। একজনের নাম রেখেছেন হাসান এবং অপর জনের নাম রেখেছেন হোসেন। হাসান আগে জন্মগ্রহণ করেছিলেন এবং হোসেন পরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন উনাদের জন্মের সাতদিন পরে রাসুল সাঃ তাদের আকিকা দিয়েছিলেন। তাহলে এই থেকে জানা যায় যে, আকিকা দিতে হয় শিশু জন্মের সপ্তম দিনে।

আর একটি হাদীসে এসেছে যে, আকিকা সপ্তম দিনে দেওয়া যায়, অথবা 14 তম দিন এবং 21 তম দিন দেওয়া যায়। কেউ যদি সপ্তম দিনে আকিকা দিতে ব্যর্থ হন তাহলে তিনি 14 তম দিনে দিতে পারেন অথবা না পারলে 21 তম দিন।

অনেকেই হয়তো তিনটি দিবসের মধ্যে আকিকা দিতে পারেন নি। হয়তো আপনার কাছে টাকা ছিল না সেজন্য। তাহলে আপনার যখন সুযোগ হয় তখন আকিকা আদায় করে নিবেন।

কিন্তু সুস্পষ্টভাবে বলতে গেলে আকিকার সময়সীমা উল্লেখ আছে সপ্তম দিন।

আকিকার গোস্ত বন্টনের নিয়ম

আকিকা দেওয়ার নিয়ম

আকিকা দেওয়ার জন্য পশু হিসেবে ছাগল উত্তম। অনেকেই প্রশ্ন করে থাকেন ছেলে এবং মেয়েদের ক্ষেত্রে আকিকার নিয়ম ভিন্ন অথবা কেমন ?

(ছেলেদের ক্ষেত্রে) আকিকার নিয়ম অনুযায়ী ছেলেদের ক্ষেত্রে শিশু জন্ম গ্রহণের সপ্তম দিনে দুইটি ছাগল আকিকা হিসেবে দিতে হয়।

(মেয়েদের ক্ষেত্রে) আকিকার নিয়ম অনুযায়ী মেয়েদের ক্ষেত্রে শিশু জন্ম গ্রহণের সপ্তম দিনে একটি ছাগল আকিকা হিসেবে দিতে হয়।

তবে এ ক্ষেত্রে ভিন্ন হলেও কোন বাধ্যবাধকতা নেই। যদি কোন ব্যক্তির আর্থিক অবস্থার কারণে ছেলেদের ক্ষেত্রে দুটি ছাগল দিতে না পারেন তাহলে তিনি একটি ছাগল দিতে পারেন।

অন্যদিকে মেয়েদের ক্ষেত্রে একটি ছাগল বর্ণনা থাকলেও কোন ব্যক্তির সামর্থ্য যদি থাকে তাহলে তিনি একের অধিক ছাগল আকিকা হিসেবে দিতে পারেন।

আকিকার গোস্ত বন্টনের করবেন কিভাবে জেনে নিন

আকিকার মাংস বন্টন এর জন্য  আলাদা তেমন কোনো নিয়ম নেই। ইসলাম ধর্মের কোরবানির মাংস বন্টনের নিয়ম অনুযায়ী আকিকার মাংস বন্টন করতে হয়। কোরবানির নিয়ম অনুসরণ করলে আপনি আকিকার সকল নিয়ম পালন হয়ে যাবে।

অনেকেই ভাবেন আকিকার গোশত স্বাভাবিকভাবে পিতা-মাতা অথবা আত্মীয় স্বজন খেতে পারেন না। আসলে এরকম কোন নিয়ম নেই কুরবানীর নিয়ম যেমন ঠিক তেমনি ভাবে আকিকার মাংস আত্মীয়-স্বজনসহ শিশুর পিতা মাতা সকলের খেতে পারেন।

আত্মীয়-স্বজন পরিবার-পরিজন বন্ধু-বান্ধব ফকির মিসকিনের মধ্যে বন্টন করতে পারেন। এক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট কোন নিয়ম রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম হাদিসের মধ্যে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়নি।

nu result 2022

আকিকার মাংস কতদিন খাওয়া যাবে

আপনাদের এটা জানা অত্যন্ত জরুরী যে আকিকার মাংস কতদিন খাওয়া যাবে। আকিকার মাংস কুরবানীর নিয়ম অনুযায়ী খাওয়া যায় তবে আকিকার মাংস রেখে খাওয়া উচিত নয়। আকিকা দেওয়ার পর আকিকার মাংস নিজ পরিবার আত্মীয়স্বজন এবং গরীবদের মাঝে বন্টন করে দেওয়া উচিত। এটি ফ্রিজে রেখে খাওয়া উচিত নয়।

আকিকার অনুষ্ঠান করা কি জায়েজ

আমাদের সমাজে আকিকার দিনে অনুষ্ঠান করে থাকেন। কিন্তু এই অনুষ্ঠান জায়েয আছে কিনা সেই সম্পর্কে অনেকেই জানেন না। আকিকা অনুষ্ঠান জায়েজ আছে কিনা সেই সম্পর্কে ইসলাম কি বলে সে বিষয়টি অবশ্যই জানা উচিত।

আগেকার দিনে অনুষ্ঠান করা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও সাহাবাগণ থেকে প্রমাণিত নয়। আকিকার গোশতের হুকুম কুরবানীর গোশত নিজ পরিবার আত্মীয়স্বজন এবং গরীবদের মাঝে বন্টন করার সুযোগ রয়েছে। কিন্তু আকিকার অনুষ্ঠান করার কোন প্রমাণ পাওয়া যায় না।

Leave a Comment

Your email address will not be published.