গরুর ওজন মাপার নিয়ম

গরুর ওজন মাপার নিয়ম- কোরবানির গরুর ওজন মাপার সঠিক নিয়ম

গরুর ওজন মাপার নিয়ম : আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে মুসলিম পরিবার গুলোতে এখন নতুন একটি আনন্দ আসতে চলেছে। মুসলমানদের দুটি উৎসবের মধ্যে এটি আরেকটি বড় উৎসব। পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে প্রায় পরিবার থেকেই কোরবানি করা হয়। এবং কোরবানির জন্য বিভিন্ন ধরনের পশু নির্বাচন করা হয়। তাই বলে যে কোন পশু কোরবানি হয় না। ধর্মীয় গ্রন্থ উল্লেখিত  নির্দিষ্ট কিছু  চতুষ্পদ প্রাণী কোরবানি করা হয়। কিন্তু অনেকেই কোরবানির পশু কিনতে গিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন কিভাবে তারা প্রশ্নগুলো ওজন নির্ধারণ করবেন। কারণ এটি একটি অভিজ্ঞতা বলা যায় । কারণ অভিজ্ঞতা ছাড়া কেউ আইডিয়া নিতে পারে না কেমন মাংস হবে।

গরুর ওজন মাপার নিয়ম

আপনি কি পশুর মাংস ওজন নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন?  আপনি কি ভাবছেন কীভাবে পশুর মাংস ওজন করা যায়। চিন্তার কোন কারণ নেই আপনি সঠিক জায়গাতে এসেছেন আপনি আমাদের ওয়েবসাইট থেকে খুব সহজেই জানতে পারবেন কিভাবে পশুর মাংস পরিমাপ করা যায়। পশুর মাংস ওজন নিয়ে আমরা বিস্তারিত আলোচনা এই নিবন্ধনের করেছি। তাই কিভাবে আপনি পশুর মাংস নিয়ে একটি আইডিয়া পাবেন তা জানতে হলে অবশ্যই আপনাকে এই নিবন্ধটির মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে। আপনি যদি নিবন্ধনটি মনোযোগ সহকারে না পারেন তাহলে আপনার পশুর মাংস নির্ধারণ করতে পারবেন না। তাই আপনার মূল্যবান সময় টি দিয়ে নিবন্ধনটি পড়ুন এবং সঠিক তথ্যটি পেয়ে যান।

পবিত্র ঈদুল আযহার বেশি সময় নেই। প্রত্যেকটি শহরে পশুর হাটগুলো এখন জমজমাট হয়ে উঠেছে। এবং ক্রেতারা পশু কেনার জন্য সেখানে ভিড় জমাচ্ছেন।

অনেক ব্যক্তি আছেন যারা গরু বা অন্যান্য যে কোন পশু কিনতে অনভিজ্ঞ। তাদের জন্য এটি অনেকটা কঠিন কাজ। কারণ পশুর মাংস নির্ধারণ করা টা অনেক কঠিন। সকালের এ বিষয়ে সঠিক জ্ঞান নেই। তাই অনেকেই কোরবানির পশু কিনতে গেলেও তারা জানেন না কিভাবে মাংস ওজন নির্ধারণ করতে হয়।

হাটগুলোতে সাধারণত প্রশ্নগুলো মাংস ওজন হিসেবেই দাম রাখতে হয়। এবং ক্রেতারাও সেই অনুযায়ী তাদের দর কষাকষি করে থাকেন। তাই মাংসের ওজন নির্ধারণ করা অত্যন্ত জরুরী। যদি আপনি পশুর মাংস নির্ধারণ করতে পারেন তাহলে আপনি মূল্য হিসেবে সাশ্রয় করে পশু কিনতে পারবেন। কারণ একটি পশুর ওজন হবে তার ৬০ – ৬৫ % মাংস হয়। তাই এই কৌশলটি আপনার জানা অত্যন্ত জরুরী।

আকিকার গোস্ত বন্টনের নিয়ম

কোরবানির গরুর ওজন মাপার সঠিক নিয়ম

ওজন মাপার জন্য দুইটি পদ্ধতি রয়েছে।

  • একটি হলো ডিজিটাল স্কেল ওজন নির্ধারণ করা। ডিজিটাল স্কেল মিটারে খুব সহজেই ওজন নেওয়া যায়। কিন্তু এর সুবিধা ও অসুবিধা দুটোই রয়েছে। এটি সুবিধা হল খুব সহজে কম সময়ে ওজন মাপা যায়। এবং ওজনের গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেশি। অসুবিধা হলো এই সব জায়গাতে পাওয়া যায় না। কারণ বড় ধরনের স্কেল না হলে গরুর ওজন মাপা যায় না।
  • আরেকটি পদ্ধতি হলো ফিতা দিয়ে ওজন নির্ধারণ করা। আপনি ভাবতে পারেন যে ফিতা দিয়ে কিভাবে ওজন মাপা যায় ?  সেটা দৈর্ঘ্য প্রস্থ মাপার জন্য। তবে এই ফিতা দিয়ে নির্দিষ্ট গাণিতিক সূত্র প্রয়োগ করে কম সময়ে ওজন নির্ধারণ করা যায়।

ফিতা দিয়ে ওজন মাপতে যা যা প্রয়োজন

  • মাপার ফিতা বা স্কেল টেপ
  • ক্যালকুলেটর আপনি মোবাইল ব্যবহার করেও কাজ করতে পারবেন।

ওজন পদ্ধতিঃ আপনি যে গরুটি ওজন করতে চাচ্ছেন , প্রথমে গরুটিকে সোজা করে দাঁড় করিয়ে নিন। এবার ফিতা দিয়ে তার লম্বা দৈর্ঘ্য বের করে নিন। এজন্য গরুর লেজ গোড়া থেকে শুরু করে সামনের পায়ের গোড়ালি পর্যন্ত ফিতা ধরে দৈর্ঘ্য বের করতে হবে। এখন আপনাকে সামনের দুই পায়ের কাছে দিয়ে সুতার সাহায্যে বুকের কত ইঞ্চি তা পরিমাপ করে নিতে হবে। এটি প্রস্থ হিসেবে ধরে নেওয়া হয়। এটি অবশ্যই আপনি সঠিকভাবে লিখে রাখবেন। এবার সূত্র প্রয়োগ করে দ্রুত ওজন নির্ধারণ করে নিন

গরুর ওজন নির্ধারণ করার সূত্র

গরুর ওজন মাপার নিয়ম

গরুর মোট ওজন= গরুর দৈর্ঘ্য X বুকের বেড় X বুকের বেড়/৬৬০

মনে করুন, একটি গরুর দৈর্ঘ্য 70 ইঞ্চি এবং এর বেড় 60 ইঞ্চি। তবে গরুর ওজন কত হবে ? (৭০X৬০X৬০)/৬৬০) = ৩৮১ কেজি (প্রধান সূত্রে পাউন্ডের হিসাব করা হয়েছে কিন্তু আমরা হিসেবে সুবিধার জন্য কেজিতে রুপান্তর করে 660 দ্বারা ভাগ করেছি ) এই সূত্রটি প্রয়োগ করে গাভীর ওজন নির্ধারণ করে নিতে পারবেন। 

পশুর মাংস নির্ধারণ করার পদ্ধতি

এই পদ্ধতি অনুসরণ করে হাটে অল্প সময়ের মধ্যে গরুর ওজন নির্ধারণ করতে পারবেন। অবশ্যই আপনাকে মনে রাখতে হবে একটি গরুর ওজনের ৬০-৬৫ শতাংশ মাংস পাওয়া সম্ভব। উপরের নিয়ম অনুযায়ী গরুর ওজন ৩৮১ কেজি এর 60 থেকে 65 শতাংশ মাংস পাওয়া যাবে।

এই সূত্র প্রয়োগ এর মাধ্যমে অতি সহজে ওজন নির্ধারণ করতে পারবেন। এবং এই সূত্রের সাহায্যে নির্ধারণ করা ওজন 95% সঠিক হয়ে থাকে । তাই খুব সহজে আপনি নিশ্চিন্তে সূত্র প্রয়োগ করে ওজন নির্ধারণ করুন এবং পশু কিনে নিতে পারেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.